১২:৫৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে সৌম্যর সরকারের মধ্যে

  • স্পোর্ট ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : ১১:৩২:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২২
  • ২০৭ বার পঠিত

আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে সৌম্যর মধ্যে

আত্ম বিশ্বাসের ঘাটতির কারণেই ব্যাটে রান পাচ্ছেন না সৌম্য সরকার, এমনটাই মনে করছেন তাঁর গুরু নাজমুল আবেদিন ফাহিম স্যার। সেই সাথে প্রিমিয়ার লিগ থেকে বাদ পড়ায় মানসিক ভাবেও অনেকটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।

২০২২ সনে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ব্যাট হাত মাত্র একটি ফিফটি হাঁকিয়েছেন সৌম্য। তারপর আর যেন সৌম্যর ব্যাট হাসেনি। এরই মাঝে আবার বাদও পড়েছিলেন মূল দল থেকে। নিয়মিত সুযোগ পেয়েও রান করতে না পারায় সৌম্যর মাঝে আত্ম বিশ্বাসের অভাবও দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন কোচ ফাহিম স্যার।

আত্ম বিশ্বাসের অভাব ভোগার কারণে ব্যাটিংয়েও প্রভাব পড়েছে। তবে নাজমুল আবেদিনের ধারণা সৌম্য তাঁর সমস্যা ধরতে পেরেছেন। সৌম্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন,

“অবশ্যই, সবচেয়ে বড় জিনিস আত্মবিশ্বাস। যখন একজন প্লেয়ার এর আত্ম বিশ্বাসের ঘাটতি থাকে তখন সিদ্ধান্ত গ্রহণে সমস্যা দেখা দেয়। আমি কিভাবে খেলব, আমার অ্যাপ্রোচ কেমন হবে, বলটা জোরে মারব না আস্তে মারব। এ ধরণের কনফিউশন নিয়ে ব্যাটিং করাটা খুব কঠিন। ব্যাটিংয়ের ব্যাপারটা হচ্ছে বোলার বোলিং করবে, আমি ব্যাটিং করব, এর বাইরে কোনো কিছু চিন্তা করার সুযোগ নেই।”

জাতীয় দলের একজন নিয়মিত খেলোয়াড় যখন এমন একটা কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যায় তখন তাঁর মাথায় অনেক আজে-বাজে চিন্তা চলে আসে। আমার মনে হয় সৌম্য যদি একটু রান করতে পারে তবে আবারও আত্ম বিশ্বাস ফিরে পাবে। নেটে তাঁর ফুট ওয়ার্ক, ব্যালেন্স এবং ব্যাটে-বলে যে ব্যাপারটা রয়েছে সে বুঝতে পারছে কোথায় তাঁর সমস্যা ছিল। তবে ওকে আরও কাজ করতে হবে সামনে এগিয়ে জেতে।

একটা সময় জাতীয় দলে নিয়মিতই খেলতেন সৌম্য সরকার। তবে বর্তমানে ঘরোয়া ক্রিকেটেও বাদ পড়ায় মানসিক ভাবে কিছুটা ভেঙে পড়েছেন সৌম্য। তবে আবেদিন ফাহিম স্যার বলছেন ঠিক কি কারণে সৌম্য বাদ পড়েছেন তা সৌম্য নিজেই উপলদ্ধি করতে পেরেছেন।

“যতটা খারাপ হওয়া উচিত ততটা না। সৌম্য সরকারের মত তারকা খেলোয়াড়ের লিগের দলে জায়গা না পাওয়া ও সেখানে চ্যালেঞ্জড হওয়াটা খুব কঠিন একটা ব্যাপার হওয়ে দাঁড়ায়। বাট ও এটির সঙ্গে অনেকটা মানিয়ে নিয়েছে এবং বুঝতে পেরেছে এর পেছনে ওর দায় রয়েছে। ভালো খেলে দলে ফিরতে হবে সেটা সে বুঝে।”

About Author Information

জনপ্রিয় সংবাদ

আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে সৌম্যর সরকারের মধ্যে

নেত্রকোনা শহর রক্ষা বাধে ভাঙ্গন

আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে সৌম্যর সরকারের মধ্যে

আপডেট টাইম : ১১:৩২:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২২

আত্ম বিশ্বাসের ঘাটতির কারণেই ব্যাটে রান পাচ্ছেন না সৌম্য সরকার, এমনটাই মনে করছেন তাঁর গুরু নাজমুল আবেদিন ফাহিম স্যার। সেই সাথে প্রিমিয়ার লিগ থেকে বাদ পড়ায় মানসিক ভাবেও অনেকটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।

২০২২ সনে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ব্যাট হাত মাত্র একটি ফিফটি হাঁকিয়েছেন সৌম্য। তারপর আর যেন সৌম্যর ব্যাট হাসেনি। এরই মাঝে আবার বাদও পড়েছিলেন মূল দল থেকে। নিয়মিত সুযোগ পেয়েও রান করতে না পারায় সৌম্যর মাঝে আত্ম বিশ্বাসের অভাবও দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন কোচ ফাহিম স্যার।

আত্ম বিশ্বাসের অভাব ভোগার কারণে ব্যাটিংয়েও প্রভাব পড়েছে। তবে নাজমুল আবেদিনের ধারণা সৌম্য তাঁর সমস্যা ধরতে পেরেছেন। সৌম্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন,

“অবশ্যই, সবচেয়ে বড় জিনিস আত্মবিশ্বাস। যখন একজন প্লেয়ার এর আত্ম বিশ্বাসের ঘাটতি থাকে তখন সিদ্ধান্ত গ্রহণে সমস্যা দেখা দেয়। আমি কিভাবে খেলব, আমার অ্যাপ্রোচ কেমন হবে, বলটা জোরে মারব না আস্তে মারব। এ ধরণের কনফিউশন নিয়ে ব্যাটিং করাটা খুব কঠিন। ব্যাটিংয়ের ব্যাপারটা হচ্ছে বোলার বোলিং করবে, আমি ব্যাটিং করব, এর বাইরে কোনো কিছু চিন্তা করার সুযোগ নেই।”

জাতীয় দলের একজন নিয়মিত খেলোয়াড় যখন এমন একটা কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যায় তখন তাঁর মাথায় অনেক আজে-বাজে চিন্তা চলে আসে। আমার মনে হয় সৌম্য যদি একটু রান করতে পারে তবে আবারও আত্ম বিশ্বাস ফিরে পাবে। নেটে তাঁর ফুট ওয়ার্ক, ব্যালেন্স এবং ব্যাটে-বলে যে ব্যাপারটা রয়েছে সে বুঝতে পারছে কোথায় তাঁর সমস্যা ছিল। তবে ওকে আরও কাজ করতে হবে সামনে এগিয়ে জেতে।

একটা সময় জাতীয় দলে নিয়মিতই খেলতেন সৌম্য সরকার। তবে বর্তমানে ঘরোয়া ক্রিকেটেও বাদ পড়ায় মানসিক ভাবে কিছুটা ভেঙে পড়েছেন সৌম্য। তবে আবেদিন ফাহিম স্যার বলছেন ঠিক কি কারণে সৌম্য বাদ পড়েছেন তা সৌম্য নিজেই উপলদ্ধি করতে পেরেছেন।

“যতটা খারাপ হওয়া উচিত ততটা না। সৌম্য সরকারের মত তারকা খেলোয়াড়ের লিগের দলে জায়গা না পাওয়া ও সেখানে চ্যালেঞ্জড হওয়াটা খুব কঠিন একটা ব্যাপার হওয়ে দাঁড়ায়। বাট ও এটির সঙ্গে অনেকটা মানিয়ে নিয়েছে এবং বুঝতে পেরেছে এর পেছনে ওর দায় রয়েছে। ভালো খেলে দলে ফিরতে হবে সেটা সে বুঝে।”