১২:১৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় রোটা ভাইরাসের সংক্রমণ।

দিলীপ কুমার দাস নিজস্ব প্রতিনিধি।
ভাইরাল ডায়রিয়া রোটা ভাইরাস রোগ ছড়িয়ে পড়েছে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায়। শীতকালে শিশুদের ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার জন্য দায়ী সংক্রামক ভাইরাস ‘রোটা’। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুরা রোটা ভাইরাসের সংক্রমণে আক্রান্ত হয় বেশি। আর দুই বছরের কম বয়সী শিশুরা আরও বেশি ঝুঁকিতে থাকেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। গত বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ২২ জন শিশু ভাইরাল ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এনিয়ে শিশুর সংখ্যা দাড়ালো ৫০ জন। তাদের মধ্যে ১৭ জন শিশু সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কলমাকান্দা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছত্রংপুর গ্রামের মো. শামীম আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে ভাতিজা আব্দুল আহাদের ডায়রিয়া দেখা দেয়। অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার সকালে তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করায়। স্যালাইন পুশ করা হয়েছে এবং তা শরীরে চলছে।

কর্তব্যরত সেবিকা মনিসা কুবি ও চাঁপা দিও তারা বলেন, আমাদের হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর ঔষধপত্র আছে। এগুলো স্যালাইনসহ রোগীদের মধ্যে সাপ্লাই দিচ্ছি।

এ বিষয়ে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শরিফুল আলম বলেন, রোটা ভাইরাস রোগী সন্ধ্যার আগে এসেছিলেন তিনজন এর মধ্যে দুই শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আরেক রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়ীতে নিয়ে গেছেন তার অভিভাবক।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ আল মামুন বলেন, ভাইরাল ডায়রিয়া রোটা ভাইরাস রোগের কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে। ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে বেশিরভাগই শিশু। আক্রান্ত রোগীদের সার্বক্ষণিক নজরে রাখা হচ্ছে। রোগীদের স্যালাইনসহ প্রয়োজনীয় ঔষধ দেয়া হচ্ছে।

About Author Information

জনপ্রিয় সংবাদ

আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে সৌম্যর সরকারের মধ্যে

নেত্রকোনা শহর রক্ষা বাধে ভাঙ্গন

নেত্রকোনার কলমাকান্দায় রোটা ভাইরাসের সংক্রমণ।

আপডেট টাইম : ০৫:৫৫:৫৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২২

দিলীপ কুমার দাস নিজস্ব প্রতিনিধি।
ভাইরাল ডায়রিয়া রোটা ভাইরাস রোগ ছড়িয়ে পড়েছে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায়। শীতকালে শিশুদের ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার জন্য দায়ী সংক্রামক ভাইরাস ‘রোটা’। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুরা রোটা ভাইরাসের সংক্রমণে আক্রান্ত হয় বেশি। আর দুই বছরের কম বয়সী শিশুরা আরও বেশি ঝুঁকিতে থাকেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। গত বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ২২ জন শিশু ভাইরাল ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এনিয়ে শিশুর সংখ্যা দাড়ালো ৫০ জন। তাদের মধ্যে ১৭ জন শিশু সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

কলমাকান্দা উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছত্রংপুর গ্রামের মো. শামীম আলম জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে ভাতিজা আব্দুল আহাদের ডায়রিয়া দেখা দেয়। অবস্থার অবনতি হলে শুক্রবার সকালে তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করায়। স্যালাইন পুশ করা হয়েছে এবং তা শরীরে চলছে।

কর্তব্যরত সেবিকা মনিসা কুবি ও চাঁপা দিও তারা বলেন, আমাদের হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর ঔষধপত্র আছে। এগুলো স্যালাইনসহ রোগীদের মধ্যে সাপ্লাই দিচ্ছি।

এ বিষয়ে কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শরিফুল আলম বলেন, রোটা ভাইরাস রোগী সন্ধ্যার আগে এসেছিলেন তিনজন এর মধ্যে দুই শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আরেক রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়ীতে নিয়ে গেছেন তার অভিভাবক।

এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুহাম্মদ আল মামুন বলেন, ভাইরাল ডায়রিয়া রোটা ভাইরাস রোগের কারণে ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে। ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে বেশিরভাগই শিশু। আক্রান্ত রোগীদের সার্বক্ষণিক নজরে রাখা হচ্ছে। রোগীদের স্যালাইনসহ প্রয়োজনীয় ঔষধ দেয়া হচ্ছে।