০৯:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আমেরিকার নাসার বিজ্ঞানীর পর চাঁদে পা রাখবেন জাপান

  • সময়ঃ ১২:৩৫:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪
  • ৩২ সময়

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চাঁদে পা রেখেছেন শুধু আমেরিকানরাই, এই প্রথম ভাঙবে নাসার ‘ঐতিহ্য’! কৃতিত্ব পাবে কোন দেশ?

জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা আমেরিকা সফরে গিয়েছেন। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে করা সাংবাদিক বৈঠকে বাইডেন ঘোষণা করেছেন, এই প্রথম আমেরিকার বাইরের কেউ চাঁদে পা রাখবেন এবং তিনি হবেন জাপানি।

লাল-সবুজের পতাকা হাতে বিমান থেকে লাফ দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন আশিক

২০২৬ সালের মধ্যে চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ‘আর্টেমিস’ অভিযানের তোড়জোড় চলছে জোরকদমে। তার মাঝেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়ে দিলেন, নাসার অভিযানের সঙ্গে চাঁদে পা রাখতে চলেছেন ভিন্‌দেশীরাও। এত দিন পর্যন্ত শুধু আমেরিকার নাগরিকেরাই চাঁদে পা রেখেছেন। এ বার নাসার হাত ধরেই সেই কৃতিত্ব পাবে অন্য এক দেশও। প্রথম ‘ভিন্‌দেশি’ (নন-আমেরিকান) হিসাবে চাঁদে পা রাখবেন এক জাপানি।

ইসরায়েলকে টার্গেট করে বড় ধরনের মিসাইল হামলা চালালো হামাস

সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা আমেরিকা সফরে গিয়েছেন। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে করা সাংবাদিক বৈঠকেই এই ঘোষণা করেছেন বাইডেন। জাপানের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নাসার চন্দ্র অভিযান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘নাসার ভবিষ্যতের অভিযানে দু’জন জাপানি মহাকাশচারী থাকবেন। তাঁদের মধ্যে এক জন হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম ব্যক্তি, যিনি আমেরিকান নন।’’

বাইডেনের এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি এ-ও জানিয়েছেন, নাসার আর্টেমিস অভিযানে শামিল হওয়ার মতো একটি আস্ত রোভার তৈরি করে দেবে তাঁর দেশ।

বস্তুত, চাঁদে প্রথম পা রেখেছিলেন আমেরিকার মহাকাশচারী নীল আর্মস্ট্রং। তাঁর সঙ্গে ছিলেন এডুইন অলড্রিনও। ১৯৬৯ সালের জুলাই থেকে ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত নাসার অ্যাপোলো অভিযানের শরিক হিসাবে মোট ১২ জন মহাকাশচারী চাঁদে গিয়েছেন। তাঁরা প্রত্যেকেই আমেরিকান। এখনও পর্যন্ত আমেরিকার বাইরের কোনও দেশের চাঁদে পা রাখার কৃতিত্ব নেই। ২০২৬ সালে নাসার আর্টেমিস অভিযান যদি সফল হয়, তবে এক জাপানি হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম মহাকাশচারী, যিনি আমেরিকান নন।

র‍্যাবের মহাপরিচালক হলেন ব্যারিস্টার মোঃ হারুন অর রশিদ

চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে চিনেরও। ২০৩০ সালের মধ্যে তারাও এই কৃতিত্বের অধিকারী হবে বলে দাবি করেছে। আর্টেমিস অভিযানকে সফল করতে নাসার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে জাপানের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জাক্সা। সম্প্রতি তারা চাঁদে নিজস্ব মহাকাশযানও পাঠিয়েছে। গত জানুয়ারিতেই চাঁদের মাটি ছুঁয়েছে জাপানের ‘স্লিম’। এর মাধ্যমে আমেরিকা, রাশিয়া, চিন এবং ভারতের পর জাপান চাঁদে পৌঁছতে পারা পঞ্চম দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এ বার সেই দেশের নাগরিকই চাঁদের মাটি ছুঁতে চলেছেন।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

জনপ্রিয় নিউজ

আমেরিকার নাসার বিজ্ঞানীর পর চাঁদে পা রাখবেন জাপান

সময়ঃ ১২:৩৫:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চাঁদে পা রেখেছেন শুধু আমেরিকানরাই, এই প্রথম ভাঙবে নাসার ‘ঐতিহ্য’! কৃতিত্ব পাবে কোন দেশ?

জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা আমেরিকা সফরে গিয়েছেন। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে করা সাংবাদিক বৈঠকে বাইডেন ঘোষণা করেছেন, এই প্রথম আমেরিকার বাইরের কেউ চাঁদে পা রাখবেন এবং তিনি হবেন জাপানি।

লাল-সবুজের পতাকা হাতে বিমান থেকে লাফ দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন আশিক

২০২৬ সালের মধ্যে চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ‘আর্টেমিস’ অভিযানের তোড়জোড় চলছে জোরকদমে। তার মাঝেই আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন জানিয়ে দিলেন, নাসার অভিযানের সঙ্গে চাঁদে পা রাখতে চলেছেন ভিন্‌দেশীরাও। এত দিন পর্যন্ত শুধু আমেরিকার নাগরিকেরাই চাঁদে পা রেখেছেন। এ বার নাসার হাত ধরেই সেই কৃতিত্ব পাবে অন্য এক দেশও। প্রথম ‘ভিন্‌দেশি’ (নন-আমেরিকান) হিসাবে চাঁদে পা রাখবেন এক জাপানি।

ইসরায়েলকে টার্গেট করে বড় ধরনের মিসাইল হামলা চালালো হামাস

সম্প্রতি জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিয়ো কিশিদা আমেরিকা সফরে গিয়েছেন। তাঁকে সঙ্গে নিয়ে করা সাংবাদিক বৈঠকেই এই ঘোষণা করেছেন বাইডেন। জাপানের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নাসার চন্দ্র অভিযান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘নাসার ভবিষ্যতের অভিযানে দু’জন জাপানি মহাকাশচারী থাকবেন। তাঁদের মধ্যে এক জন হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম ব্যক্তি, যিনি আমেরিকান নন।’’

বাইডেনের এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে তিনি এ-ও জানিয়েছেন, নাসার আর্টেমিস অভিযানে শামিল হওয়ার মতো একটি আস্ত রোভার তৈরি করে দেবে তাঁর দেশ।

বস্তুত, চাঁদে প্রথম পা রেখেছিলেন আমেরিকার মহাকাশচারী নীল আর্মস্ট্রং। তাঁর সঙ্গে ছিলেন এডুইন অলড্রিনও। ১৯৬৯ সালের জুলাই থেকে ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত নাসার অ্যাপোলো অভিযানের শরিক হিসাবে মোট ১২ জন মহাকাশচারী চাঁদে গিয়েছেন। তাঁরা প্রত্যেকেই আমেরিকান। এখনও পর্যন্ত আমেরিকার বাইরের কোনও দেশের চাঁদে পা রাখার কৃতিত্ব নেই। ২০২৬ সালে নাসার আর্টেমিস অভিযান যদি সফল হয়, তবে এক জাপানি হবেন চাঁদে পা রাখা প্রথম মহাকাশচারী, যিনি আমেরিকান নন।

র‍্যাবের মহাপরিচালক হলেন ব্যারিস্টার মোঃ হারুন অর রশিদ

চাঁদে মহাকাশচারী পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে চিনেরও। ২০৩০ সালের মধ্যে তারাও এই কৃতিত্বের অধিকারী হবে বলে দাবি করেছে। আর্টেমিস অভিযানকে সফল করতে নাসার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে জাপানের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা জাক্সা। সম্প্রতি তারা চাঁদে নিজস্ব মহাকাশযানও পাঠিয়েছে। গত জানুয়ারিতেই চাঁদের মাটি ছুঁয়েছে জাপানের ‘স্লিম’। এর মাধ্যমে আমেরিকা, রাশিয়া, চিন এবং ভারতের পর জাপান চাঁদে পৌঁছতে পারা পঞ্চম দেশ হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এ বার সেই দেশের নাগরিকই চাঁদের মাটি ছুঁতে চলেছেন।