০১:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘুর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত হিজলা উপজেলার জনগণ, এগিয়ে আসলেন চেয়ারম্যান দিপু

  • সময়ঃ ১১:২৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
  • ৭৭ সময়

স্টাফ রিপোর্টার : বরিশালের হিজলা উপজেলায় স্মরণকাল ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে শতাধিক বসতঘর বিধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও খামারিদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে বিদ্যুৎ সঞ্চালন বন্ধ হয়ে গেছে।

হিজলা উপজেলায় ঘুর্ণিঝড়  রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে চেয়ারম্যান দিপু সিকদার  

ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে মুষলধারে বৃষ্টি ও জোয়ারে প্লাবিত হয়েছে। এতে মাছের কয়েক হাজার ঘের ও লক্ষাধিক একর ফসলি জমি প্লাবিত হয়ে খামারি ও চাষির ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা বলছেন, এবারে ঝড়ের সময় যে প্লাবন হয়েছে তা এর আগে হিজলা উপজেলায় উপজেলায় কখনো দেখা যায়নি।স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে আলোচনা করে জানা গেছে, এইবারের ঘুর্ণিঝড় সিডরের চেয়ে ও ভয়াবহ ছিল। আবার ঘূর্ণিঝড় রিমালের মতো দীর্ঘসময় ঝড়ের তাণ্ডব দেখেননি তারা। এ ঝড় রাত কাটিয়ে গোটা দিনের অর্ধেকের বেশি সময় অর্থাৎ ১৫-২০ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে প্রভাব খাটিয়েছে। যা সিডর, আইলা, নার্গিসের সময়ও এমনটা দেখা যায়নি।
হিজলায় ডিবির অভিযানে গাঁজা ব্যবসায়ী কবির আটক
মঙ্গলবার (২৮ মে) সরেজমিনে উপজেলা ঘুরে এ ক্ষয়ক্ষতি পর্যবেক্ষণ করা হয়। রোববার (২৬ মে) রাত থেকে উপজেলার ঘূর্ণিঝড় ও বৃষ্টিতে ঘরবাড়ি, গাছপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে অসংখ্য গাছপালা ভেঙে এবং উপড়ে পড়েছে। অনেক জায়গায় সড়কের ওপরে গাছ পড়ে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটেছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে অন্ধকারে আচ্ছন্নতা হয়ে আছে। অনেকেই ঘরবাড়ি হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান নেন। তাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
বরিশালের হিজলা ও মুলাদী উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন দিপু ও খসরু 
উপজেলা সূত্রে জানা যায়, জোয়ারের পানি বেড়ে লোকালয় প্লাবিত হয়েছে। বিশেষ করে বড়জালিয়া, হিজলা গৌরবদী, ধুলখোলা, মেমানিয়া ও ইউনিয়নের মানুষ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। পুরো উপজেলায় কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি ছিল। বর্তমানে ৪০ থেকে ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি আছে। দুর্গত এলাকার মানুষের জন্য ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও মৎস্য চাষিদের জোয়ারের পানি বেড়ে যাওয়ায় কোথাও বাঁধ ভাঙে আবার কোথাও বাঁধ উপচে পুকুর ও ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।সয়াবিন ক্ষেতে বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। বেড়িবাঁধের বাইরে থাকা নিচু এলাকার প্রায় সবগুলো ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

তবে উপজেলা সূত্র বলছে, ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে চারশতাধিক বসতঘর বিধ্বস্ত, পানি বেড়ে প্লাবিত হয়ে মাছ পানিতে ভেসে গিয়ে, গরু, ছাগল, হাঁস ও মুরগি পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়ে এতে পঞ্চাশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। সবমিলিয়ে প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।
ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছে ইউরোপের তিন দেশ
পল্লী বিদ্যুৎ বরিশাল জোনাল অফিস সূত্রে জানা গেছে , ঘূর্ণিঝড়ের ফলে বিদ্যুৎ সঞ্চালন বন্ধ রয়েছে।রাস্তার উপর গাছ পড়ে আছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে, কয়েকটি খুঁটি ভেঙে অনেকগুলো আঁকাবাঁকা হয়ে পড়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করতে কাজ চলছে।

 

নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলতাফ মাহমুদ দিপু সিকদার জানান, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত আছে।ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার সব মানুষ যাতে খাবার পায় সে বিষয়ে সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, ও উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছ। তিনি সার্বিক বিষয় মনিটরিং করছেন। এ ছাড়াও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ডক্টর শাম্মী আহমেদ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বোচ্চ সাহায্য-সহযোগিতাও করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

About Author Information

জনপ্রিয় নিউজ

ঘুর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত হিজলা উপজেলার জনগণ, এগিয়ে আসলেন চেয়ারম্যান দিপু

সময়ঃ ১১:২৫:৪৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪

স্টাফ রিপোর্টার : বরিশালের হিজলা উপজেলায় স্মরণকাল ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে শতাধিক বসতঘর বিধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এ ছাড়াও খামারিদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে বিদ্যুৎ সঞ্চালন বন্ধ হয়ে গেছে।

হিজলা উপজেলায় ঘুর্ণিঝড়  রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে চেয়ারম্যান দিপু সিকদার  

ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে মুষলধারে বৃষ্টি ও জোয়ারে প্লাবিত হয়েছে। এতে মাছের কয়েক হাজার ঘের ও লক্ষাধিক একর ফসলি জমি প্লাবিত হয়ে খামারি ও চাষির ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তরা বলছেন, এবারে ঝড়ের সময় যে প্লাবন হয়েছে তা এর আগে হিজলা উপজেলায় উপজেলায় কখনো দেখা যায়নি।স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে আলোচনা করে জানা গেছে, এইবারের ঘুর্ণিঝড় সিডরের চেয়ে ও ভয়াবহ ছিল। আবার ঘূর্ণিঝড় রিমালের মতো দীর্ঘসময় ঝড়ের তাণ্ডব দেখেননি তারা। এ ঝড় রাত কাটিয়ে গোটা দিনের অর্ধেকের বেশি সময় অর্থাৎ ১৫-২০ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে প্রভাব খাটিয়েছে। যা সিডর, আইলা, নার্গিসের সময়ও এমনটা দেখা যায়নি।
হিজলায় ডিবির অভিযানে গাঁজা ব্যবসায়ী কবির আটক
মঙ্গলবার (২৮ মে) সরেজমিনে উপজেলা ঘুরে এ ক্ষয়ক্ষতি পর্যবেক্ষণ করা হয়। রোববার (২৬ মে) রাত থেকে উপজেলার ঘূর্ণিঝড় ও বৃষ্টিতে ঘরবাড়ি, গাছপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে অসংখ্য গাছপালা ভেঙে এবং উপড়ে পড়েছে। অনেক জায়গায় সড়কের ওপরে গাছ পড়ে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটেছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে অন্ধকারে আচ্ছন্নতা হয়ে আছে। অনেকেই ঘরবাড়ি হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে অবস্থান নেন। তাদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
বরিশালের হিজলা ও মুলাদী উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন দিপু ও খসরু 
উপজেলা সূত্রে জানা যায়, জোয়ারের পানি বেড়ে লোকালয় প্লাবিত হয়েছে। বিশেষ করে বড়জালিয়া, হিজলা গৌরবদী, ধুলখোলা, মেমানিয়া ও ইউনিয়নের মানুষ বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। পুরো উপজেলায় কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি ছিল। বর্তমানে ৪০ থেকে ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি আছে। দুর্গত এলাকার মানুষের জন্য ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও মৎস্য চাষিদের জোয়ারের পানি বেড়ে যাওয়ায় কোথাও বাঁধ ভাঙে আবার কোথাও বাঁধ উপচে পুকুর ও ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।সয়াবিন ক্ষেতে বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। বেড়িবাঁধের বাইরে থাকা নিচু এলাকার প্রায় সবগুলো ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

তবে উপজেলা সূত্র বলছে, ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে চারশতাধিক বসতঘর বিধ্বস্ত, পানি বেড়ে প্লাবিত হয়ে মাছ পানিতে ভেসে গিয়ে, গরু, ছাগল, হাঁস ও মুরগি পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়ে এতে পঞ্চাশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। সবমিলিয়ে প্রায় কয়েক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।
ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছে ইউরোপের তিন দেশ
পল্লী বিদ্যুৎ বরিশাল জোনাল অফিস সূত্রে জানা গেছে , ঘূর্ণিঝড়ের ফলে বিদ্যুৎ সঞ্চালন বন্ধ রয়েছে।রাস্তার উপর গাছ পড়ে আছে। বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে গেছে, কয়েকটি খুঁটি ভেঙে অনেকগুলো আঁকাবাঁকা হয়ে পড়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করতে কাজ চলছে।

 

নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও হিজলা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলতাফ মাহমুদ দিপু সিকদার জানান, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত আছে।ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার সব মানুষ যাতে খাবার পায় সে বিষয়ে সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, ও উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছ। তিনি সার্বিক বিষয় মনিটরিং করছেন। এ ছাড়াও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ডক্টর শাম্মী আহমেদ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের সর্বোচ্চ সাহায্য-সহযোগিতাও করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।